হাসরের ময়দানে আধিপত্য বিস্তারের লড়াই- অপপ্রচারের শিকার জাহাঙ্গীর কবির

বিশেষ প্রতিনিধি  : চাটখিল  উপজেলার ৫  নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের হাসর বাজারে মলংচর ও হাসর গ্রামের বিবদমান দুই পক্ষের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে  গত বৃহস্পতিবার রাতে  সংঘর্ষে লিপ্ত হয় । এতে উভয়পক্ষের ১০ জন আহত এবং বাজারের ৮ টি  দোকান ভাঙচুর করা হয়। সংঘর্ষের খবর পেয়ে চাটখিল থানা পুলিশের একটি দল দ্রুত ঘটনাস্থলে গেলে উভয় পক্ষ পালিয়ে যায়।  সংঘর্ষে আহতদের চিকিৎসার জন্য তৎক্ষণাৎ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন হাসপাতালে প্রেরণ করে । ঘটনার সংবাদ পেয়ে  ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল্লাহ স্থানীয় মেম্বার সহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ কে এ বিষয়ে সবাইকে বুঝিয়ে শান্ত রাখার জন্য অনুরোধ জানান। এদিকে ঘটনার পরদিন ষড়যন্ত্রকারী এবং সুবিধাভোগী একটি চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঘটনার সাথে জড়িয়ে চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর কবিরের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক প্রচারণা শুরু করে । জাহাঙ্গীর কবির এর বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা প্রচারণা দেখে তীব্র প্রতিবাদ এবং নিন্দার ঝড় ওঠে চাটখিলে রাজনৈতিক অঙ্গনে । দলমত নির্বিশেষে প্রায় সকল নেতাকর্মী এই ঘটনার সাথে তাকে জড়িয়ে মিথ্যা প্রচারণার প্রতিবাদ জানান । স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায় ,এ  ঘটনার সাথে আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর কবির কে জড়ানোর মূল উদ্দেশ্য ইউপি নির্বাচন । আগামী বছর অনুষ্ঠেয় এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ সংগঠনের অনেক নেতাই চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে ইচ্ছুক ।তাই এখন থেকেই অনেকে মাঠে নিজেদের অবস্থান জানানোর জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছে। এরই ধারাবাহিকতায় একটি পক্ষ মিথ্যা প্রচারণা দিয়ে জল ঘোলা করতে চাচ্ছে । চাটখিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর কবির চাটখিল বার্তাকে জানান, তিনি চাটখিল উপজেলার সর্বস্তরের জনগণের চেয়ারম্যান ,তবে মোহাম্মদপুর তার নিজের ইউনিয়ন হওয়ায় এলাকার জনগণের প্রতি তার রয়েছে অগাধ ভালোবাসা । মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের প্রতিটি মানুষকে সুখে দুঃখে তিনি আগলে রাখেন , তবে কোন সন্ত্রাসী- চাঁদাবাজ তার কাছে প্রশ্রয় পায় না । ইউনিয়নবাসীর তার প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসায় অনেকেই অসহ্য হয়ে উঠেছে, তাই ষড়যন্ত্রকারীরা মিথ্যা প্রচারণায় লিপ্ত হয়েছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন , মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন বাসী এবং চাটখিল উপজেলাবাসী তার প্রতি অতীতে যে ভালোবাসা বিশ্বাস দেখিয়েছে এরই ধারাবাহিকতায় ভবিষ্যতেও তিনি জনগণের আস্থা এবং বিশ্বাসের জায়গায় থাকবেন, কোনো ষড়যন্ত্রই সফল হবে না।