সালাউদ্দিন কামরান

৯০’এর গণ অভুত্থানে স্বৈরাচার সরকারের পতনের পর ১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গনতন্ত্রী পার্টির কেদ্রীয় সভাপতি মরহুম কমরেড নূরুল ইসলামকে পরাজিত করে চমক সৃষ্টিকারী বিএনপির সাবেক সাংসদ এ্যাডভোকেট সালাহউদ্দিন কামরান আসন্ন সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালী-১ (চাটখিল ও সোনাইমুড়ী) আসনে প্রার্থী হতে চান। সম্প্রতি তিনি দৈনিক চাটখিল বার্তার সহিত আলাপ কালে জানান, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রুপ-রেখা অনুযায়ী নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচান অনুষ্ঠিত হলে তিনি এই আসনে বিএনপির মনোনয়ন চাইবেন। তিনি বলেন, চাটখিলের মাটি ও মানুষের সহিত তাঁর রয়েছে আত্মার সম্পর্ক। ১৯৯১ সালের সংসদ সদস্য নির্বচিত হওয়ার পর চাটখিলে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে একটি শক্তিশালী সাংগঠনিক কাঠামো তিনিই উপহার দিয়ে ছিলেন। যার ধারাবাহিকতায় পরবর্তী নির্বাচন সমুহে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীদের বিজয় হওয়ার ক্ষেত্রে মূল চালিকা শক্তি হিসাবে কাজ করেন । এ্যাড. সালাহ্ উদ্দিন কামরান বলেন, একটি মাত্র সরকারী কলেজ থাকায় এ উপজেলায় ছাত্র/ছাত্রীরা যখন উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে লেখা পড়ার পূর্বে সুযোগ সুবিধা হতে বঞ্চিত হচ্ছিল, ঠিক তখনই তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগে নারী শিক্ষার অগ্রদুত হিসাবে চাটখিল মহিলা মহাবিদ্যালয় সহ আরও দুটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন । এছাড়া চাটখিলের শিক্ষিত বেকারদের প্রাথমিক বিদ্যালয়, স্বাস্থ্য বিভাগ, ভূমি অধিদপ্তর সহ বিভিন্ন সেক্টরে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেন। সর্বোপরি ১৯৯৫ সালের পৌরসভা গঠনের মাধ্যমে অভিজাত শ্রেনীর জনগনের জীবনযাত্রার অধুনিকায়নের উদ্যোগ গ্রহন করেন। অবাদ তথ্য প্রবাহ নিশ্চিত করনের লক্ষে স্থানীয় সাংবাদিকদের ঐকান্তিক আগ্রহে ১৯৯৩ সালে তিনি চাটখিল প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি বলেন, রাজনৈতিক জীবনের পামাপাশি আইনজীবি হিসাবে ও এ অঞ্চলের জনগনের পাশে ছিলাম ভবিশ্যতেও চাটখিল বাসীর সেবা কারাই আমার লক্ষ।