চাটখিল উপজেলার কামালপুরের বৃষ্টি হত্যার রহস্য উদঘাটন করছে পুলিশ!

চাটখিলবার্তা ডেক্স:: হবিগঞ্জে রোকসানা আক্তার বৃষ্টি নামে এক নারীকে হত্যার সাত মাস পর এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনের বিষয়ে জানিয়েছে পুলিশ।
বুধবার (১০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ উল্ল্যা। এরআগে একইদিন বিকেলে হবিগঞ্জ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেয় ওই দম্পতি।

পুলিশের ভাষ্যমতে, স্ত্রীর দেওয়া শর্তে প্রেমিকাকে হত্যা করে লাশ ফেলে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন স্বামী-স্বীকে আটক করে পুলিশ। এরপর আদালতে স্বীকারোক্তির পর তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়।

জবানবন্দিতে তুলে ধরা তথ্যানুযায়ী এসপি মোহাম্মদ উল্ল্যা জানান, হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার পাচারগাও গ্রামের আফসার মিয়া কাওছার ও তার স্ত্রী রিপা বেগম মৌলভীবাজারের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। তাদের বাসায় সাবলেট হিসেবে থাকতেন নোয়াখালী জেলার চাটখিল থানার কামালপুর গ্রামের মৃত খোরশেদ আলী মজুমদারের মেয়ে রোকশানা আক্তার বৃষ্টি। বৃষ্টি মৌলভীবাজারের একটি বেসরকারি কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন। বাসায় সাবলেট থাকার সুবাদে আফসারের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে সে। একপর্যায়ে আফসারের স্ত্রী রিপা বিয়ষটি জানতে পারে, ফলে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া সৃষ্টি হয়। পরে রিপা রাগ করে বাপের বাড়িতে চলে যায়। এরপর রিপাকে ফিরিয়ে আনতে গেলে, বৃষ্টিকে তার জীবন থেকে সরাতে হবে এমন শর্ত দেয় রিপা।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি স্ত্রীর শর্তে প্রেমিকা বৃষ্টিকে স্বামী-স্ত্রী মিলে চুনারুঘাট উপজেলার যোগীর আসন টিলায় নিয়ে আসে। সেখানে বৃষ্টিকে প্রথমে ধর্ষণ করে আফসার, পরে গলাটিপে হত্যা করে। বৃষ্টির মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার জন্য গলায় ছুরি দিয়ে আঘাত করে আফসার। পরদিন পুলিশ লাশ উদ্ধার করে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।