চাটখিলে সন্ত্রাসী হামলায় গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫

গত রোববার রাতে চাটখিল উপজেলার পাঁচগাঁও ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে রোববার রাতে কোচিং সেন্টারে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে পিটিয়ে ও মারধর করে ১৫ জনকে আহত করে। এ সময় সন্ত্রাসীদের ছোড়া গুলিতে স্থানীয় ইউপি সদস্য গিয়াস উদ্দিন আহত হন। এ ঘটনায় আহত ইউপি সদস্য গিয়াস উদ্দিন চাটখিল থানায় মামলা করেছেন। হোসেনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন কোচিং সেন্টারের দ্বিতীয় তলায় গিয়াস উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা কামাল হোসেনসহ ১৫-২০ জন আগামী ১৩ জুন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সৈয়দ মাহমুদ হোসেন তরুণের পক্ষে নির্বাচনী সভা চলছিল। এ সময় কালু শেখের ছেলে নুর মোহাম্মদ চৌধুরী ও সিরাজের নেতৃত্বে ১৪-১৫ সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর করে। এতে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি কামাল হোসেন, মহাসীন, নসু, মেজবাসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। এ সময় গিয়াসকে লক্ষ্য করে ছোড়া শর্টগানের গুলি গিয়াসের বাম হাতে বিদ্ধ হয়। রাতেই গিয়াসকে চাটখিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেল্গক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা এগিয়ে আসে ও সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শী ফরহাদ হোসেন, জসিম উদ্দিন নসুসহ অনেকে জানান, সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। রাতের আঁধারে গুলির শব্দে গ্রামবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গিয়াস উদ্দিন জানান, গত ইউপি নির্বাচনে পরাজয়ের পর থেকে কালু শেখ ও তার ছেলেরা তাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি ও প্রাণ নাশের চেষ্টা চালাচ্ছে। রোববার রাতে নূর মোহম্মদ চৌধুরী তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পাঁচগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। নূর মোহাম্মদ চৌধুরী ২ রাউন্ড গুলি ছোড়ার কথা স্বীকার করেছেন। এ ব্যাপারে চাটখিল থানার ওসি নজমুল হক বলেন, এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।