চাটখিলে ধর্ষন মামলায় সহযোগী সহ আটক ২, জেলাহাজতে প্রেরণ

স্টাফ রিপোর্টারঃ  চাটখিল পৌরসভার ভীমপুর গ্রামে ১৭ বছর বয়সের এক তরুণী ধর্ষিত হয়েছে। দর্শনের সাথে জড়িত ভীমপুর গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে নাঈম (২২) ও রফিকুল্লাহ মোল্লার ছেলে ইউসুফ যুদানী( ২৩) কে পুলিশ শনিবার বিকেলে গ্রেফতার করেছে। এ ব্যাপারে চাটখিল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ধর্ষিতার বাবা বাবুল হোসেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন এবং পরিবার পরিজন নিয়ে গত ৬ বছর যাবত ভীমপুর গ্রামে মুজিব সদাগরের বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যা বাসার লোকজন অনুপস্থিতিতে বাবুল হোসেনের মেয়েকে বাসায় একা পেয়ে নাঈম হোসেন জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় ধর্ষিতা চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে ধর্ষক নাঈম কে হাতেনাতে আটক করে। তাৎক্ষণিক নাঈম এর সহযোগী ইয়াসুফ যুদানীর নেতৃত্বে ৩/৪ জন সন্ত্রাসী বাড়ির লোকজনের উপর হামলা করে। তাদেরকে মারধর করে ধর্ষক নাঈমকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় । গতকাল শনিবার বিকেলে পুলিশ চাটখিল পৌর শহর থেকে ধর্ষকের সহযোগী ইউসুফ যুদানীকে গ্রেফতার করে এবং তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ধর্ষক নাঈমকে তার নানার বাড়ি বানসা থেকে গ্রেপ্তার করে।
এ ব্যাপারে চাটখিল থানার ওসি আনোয়ারুল ইসলাম জানান, নাঈম ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে এবং ধর্ষিতাকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য জেলা সদরে পাঠানো হয়েছে গ্রেফতারকৃতদের কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।