চাটখিলের নেতা: ভোটের আগে ভদ্র কর্মী ভোট গেলে অসৎ সঙ্গী

মাইনউদ্দিন বাধন: নির্বাচন একজন প্রার্থীর জন্য কতটুকু গুরুত্বপূর্ণ সেটা নির্বাচনের আগ মুহুর্তে প্রার্থীদের টাকা খরচ এমনকি আচরনেই বুঝা যায়।নির্বাচনে আগে প্রার্থীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে খোজ করে তার নির্বাচনী এলাকার কোন জায়গায় একজন ভদ্র লোক পাওয়া যায়। কারণ, ভোটারের মনজয়ে প্রার্থীর হয়ে একজন ভদ্র লোকের নির্বাচনী প্রচারণা কিংবা তার পক্ষে চাপাই গাওয়া মানে ভোটের বাজারে প্রার্থীর হিসাবটাই পাল্টে যাওয়া। আর নির্বাচন শেষ তো এসকল ভদ্রলোকদের প্রয়োজনও শেষ হয়ে যায়। সেটা নির্বাচিত অথবা অনির্বাচিত প্রার্থীদের কাছে। সময়ের ব্যবধানে ভদ্র লোকদের ফোন যেন তাদের কাছে শুধু বিরক্তি ছাড়া আর কিছুই না।
এদিকে, ভোট শেষে নির্বাচিত প্রার্থী বা যিনি জয়ী হয়ে থাকে তার আসল রূপ পাওয়া যায়। চেয়ার বসেই খোঁজে কে কত বড় রংবাজ, কে কত গুলো অপরাদ করেছে, এর আগে কতগুলো টেন্ডার জমা দিয়েছে, কি পরিমান মানুষের ক্ষতি করছে, কি পরিমান ধান্দা করেছে। এসকল আচরণ কারী কর্মীদের দিয়ে জয়ী ব্যক্তির ফলও ভালো। তাদের ধান্দা দিয়ে নির্বাচিত ব্যক্তি নিচ্ছেন পয়দা। বর্তমান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চাটখিল উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব থাকা নির্বাচিত ব্যক্তিদের সাথে অনেকেই ছবি তুলে পোষ্ট করছে। তাদের পাশের এই লোক গুলোকে দেখে যে তার ভক্ত কিংবা জনগণ কি ভাবেছে সেটা শুধু ভাবাযায়, বুঝিয়ে বলা যায় না।