চাটখিলবাসী ভুলেই গেছে আ ফ ম মাহবুবুল হক কে ?

একাত্তরের যোদ্ধা বাম নেতা আ ফ ম মাহবুবুল হক। ৬৯ বছর বয়সী মাহবুবুল হক ছিলেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (মাহবুব) আহ্বায়ক। চাটথিলে যুগে যুগে অনেক সু-পুরুষের জন্ম হলেও দুই একজন ছিলেন ভিন্ন। যাদের আলোয় আলোকিত চাটখিল এই ছোট উপজেলাটি। আ ফ ম মাহবুবুল হকের জন্ম ১৯৪৮ সালের ২৫ ডিসেম্বর চাটখিল উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামে। ১৯৬২ সালে স্কুলে পড়ার সময়ই তিনি প্রতিক্রিয়াশীল শিক্ষানীতি বিরোধী ছাত্র আন্দোলনে যুক্ত হন। পরে সক্রিয় হন ছাত্র রাজনীতিতে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে পড়ার সময় ১৯৬৭ সালে তিনি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের সূর্যসেন হল শাখার সাধারণ সম্পাদক হন। ১৯৬৯-৭০ সালে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স (মুজিব বাহিনী) গঠন করা হলে সেখানে প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ছাত্রলীগ ভেঙে জাসদ ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা পেলে মাহবুবুল হক হন প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক। ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৮ পর্যন্ত তিনি সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৮ সালে জাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হন। ভারতের বামপন্থী দল সোশ্যালিস্ট ইউনিটি সেন্টার অফ ইন্ডিয়ার (এসইউসিআই) নেতা শিবদাস ঘোষের চিন্তা-চেতনার আলোকে ১৯৮০ সালে বাসদ প্রতিষ্ঠা হয়। মাহবুবুল হক হন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। তিন বছরের মাথায় আদর্শগত মতবিরোধে বাসদ দুই ভাগ হয়। একটি অংশের নেতৃত্ব পান খালেকুজ্জামান। অপর অংশের আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন মাহবুবুল হক। ১০ নভেম্বর ২০১৭ সালে আফম মাহবুবুল হক ইন্তেকাল করেন। মৃতু্যর পূর্বে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণে তিনি অটোয়ার সিভিক হসপিটাল কানাডাতে ভর্তি ছিলেন।তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন । মরে যাওয়ার পরে যেন সবই চলে যাওয়া, আর চাটখিলের মানুষতো ইতোমধ্যে ভুলেই গেছে চাটখিলের এই কৃতিসন্তানকে। যিনি ছিলেন চাটখিল গণমানুষের নেতা।