এই দিনে আমরা হারালাম চাটখিলের কৃতিসন্তান ডা. সিরাজুল ইসলামকে

মাইনউদ্দিন বাঁধন: আজ ১৩ই সেপ্টেম্বর। আজকের এই দিনে আমরা চাটখিল উপজেলা সহ দেশবাসী হারিয়েছে এক কৃতিসন্তানকে। যিনি জন্ম নিয়েছেন চাটখিল উপজেলার দক্ষিন অঞ্চলের এক সম্ভান্ত মুসলীম পরিবারে। তিনি বিশিষ্ট সমাজ সেবক, শিল্পপতি ও চিকিৎসক ডা. সিরাজুল ইসলাম। বছরের হিসেবে আজ তার ৩য় মৃত্যু বার্ষিকী। ২০১৫ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর তারিখে নোয়াখালী জেলার চাটখিল উপজেলার বিশিষ্ট সমাজ সেবক, শিল্পপতি ও চিকিৎসক ডা. সিরাজুল ইসলাম এক মর্মান্তিক সড়ক দূঘর্টনায় মৃত্যু বরণ করেন। পারিবারিক সূত্রে জানাযায়, এই বিশিষ্ট্য ব্যক্তি ডা. সিরাজুল ইসলাম ১৯৫৩ সালের ১লা মার্চ নোয়াখালী জেলার অন্তর্গত চাটখিল উপজেলার রামনারায়ণপুর ইউনিয়নের গোমাতলী গ্রামের একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন।ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের” প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি পুরান ঢাকার বিখ্যাত চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান “সুমনা হাসপাতালের” প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। তিনি সুমনা প্রাইভেট লিমিটেড, এ-ক্লাস হোল্ডিংস সহ অনেকগুলো সফল প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। কর্মজীবনে পরিশ্রমী, মেধাবী, সৃজনশীল ও সফল উদ্যোগতা হিসেবে উনার খ্যাতি সর্বত্রই বিদ্যমান ছিল। মানব সেবার উৎকর্ষে তিনি অনেকগুলো জনসেবা মূলক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। সর্বদা সাহায্যের মনোভাব নিয়েই উনার জীবের পথচলা। কর্ম জীবনে তিনি ঢাকা জেলার সিভিল সার্জন ও শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের প্রধান মেডিকেল অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এই মহান মানব ২০১৫ সালের ১৩ই সেপ্টেম্বর ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে “নরসিংদী” জেলায় এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। ডা. সিরাজুল ইসলাম ছিলেন বিশাল মনের এক অসাধারণ মানুষ, যার নিকট গিয়ে কখনো কেউ খালি হাতে ফিরতেন না। সামর্থ্যহীনদের বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদানের মাধ্যমে তিনি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। তিনি “ডা. সুলতান মাহমুদ ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্টের” চেয়ারম্যান হিসেবে জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন এবং উনার পিতার নামে গঠিত এই ট্রাষ্টের মাধ্যমে চাটখিল উপজেলার দক্ষিণ অঞ্চলে বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে দৃশ্যমান ভূমিকা রেখেছেন।সামাজিক উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ড ও মানবিক সাহায্যে নিজেকে সর্বদা সম্পৃক্ত রেখে সকলের কাছে সমাদৃত হয়েছেন প্রয়াত সিরাজুল ইসলাম সাহেব। ৩য় মৃত্যু বার্ষিকীতে প্রয়াত ডা. সিরাজুল ইসলাম সাহেবের জন্য দোয়া চেয়েছেন উনার সুযোগ্য বড় ছেলে তরুণ শিল্পপতি ও মানবতার ফেরিওয়ালা ডা. রুবাইয়াৎ ইসলাম।